বিং এসইও (Bing SEO), ১১টি গুরুত্বপূর্ণ বিং রাঙ্কিং ফ্যাক্টর

সার্চ ইঞ্জিন কথাটি বললেই আমাদের প্রথমে যে নামটি মনে আসে সেটি হচ্ছে Google, কারন আমদের দেশে একমাত্র সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে আমরা এই সার্চ জায়ান্টকেই বুঝি। কিন্তু আমরা যারা আমেরিকা (USA) এর অডিয়েন্সকে টার্গেট করে কাজ করে তাদের কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন Bing এর কথা ভুললে চলবে না। কারন, যুক্তরাষ্ট্রের ২৩% অডিয়েন্স Bing সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে।

তাই আমরা যারা SEO এর কাজ করে থাকি, তাদের টার্গেটেড দেশ যদি যুক্তরাষ্ট্র হয় তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে জানতে হবে কিভাবে সার্চ ইঞ্জিন Bing এ র‌্যাংক পাওয়া যায়। আজকের আমার আলোচনার বিষয় এটিই, Bing SEO.

কোনো ওয়েবসাইটের এসইও এর কথা বললেই আমাদের মাথায় চলে আসে কিভাবে সাইটটিকে গুগলে র‌্যাংক করানো যায়। তাই আসি আজকের আলোচনাটা একটু ভিন্ন দিকে নিয়ে যাচ্ছি, কিভাবে Bing সার্চ ইঞ্জিন এ র‌্যাংক করা যায়?

আলোচনা শুরুর আগেই বলে নেই আপনারা যারা গুগল র‌্যাংকিং বিষয়ক লেখা আমার আগের আর্টিকেলটি (গুগল র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর ২০১৯) পড়েছেন, সেখানে উল্লেখিত অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলি আমি এখানে আবার আলোচনা করছি না। তবে গুরুত্বপূর্ন Bing Ranking Factors গুলি নিয়ে আমি এখানে বলবো।

Bing Logo

একনজরে Bing সার্চ ইঞ্জিন

  • Bing রিলিজ হয় ১লা জুন ২০০৯
  • মালিক: মাইক্রোসফট
  • যুক্তরাষ্ট্রের ভিজিটর ২৩%
  • ইউনিক গ্লোবাল ভিজিটর: ১.২৩ বিলিয়ন ( ফেব্রুয়ারী-জুলাই ২০১৮)
  • ৩৬% অডিয়েন্স ২৫-৪৪ বছর পর্যন্ত, ২০% অডিয়েন্স ৪৫-৫৫ বছর
  • Bing Visual Search খুব শীঘ্রই স্মার্ট ফোন দিয়ে তোলা একটি ছবি থেকে টেক্সট পড়তে পারবে। এছাড়াও আরো যে সুবিধা গুলি থাকেছ, যেমন: ছবি থেকে মোবাইল নাম্বার বা ই-মেইল বা লিংক পড়তে পারবে।
  • Bing Visual Search একটি ম্যাথ ইকুয়েশন সমস্যাকে স্টেপ বাই স্টেপ সমাধান করতে পারবে।

তো আমরা বুঝতে পারছি যে, বিং নিজেকে আরো উন্নত করছে যাতে করে এর জনপ্রিয়তা আরো বৃদ্ধি পায়। তাহলে আমাদের কেও Bing SEO নিয়ে ভাবা উচিত।

Bing এর ভিজিটর আমাদের জন্য কতটা প্রয়োজন?

একটি জরিপে দেখা গেছে যে, গুগল এর থেকে বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ভিজিটরদের কনভার্সন রেট তুলনা মূলক ভাবে বেশী এবং বাউন্স রেট তুলনা মূলক ভাবে কম।

এর থেকে আমরা কি বুঝতে পারি? আমরা কি তাহলে এটি ধরে নিতে পারি যে বিং এর ইউজাররা একটু বেশী ম্যাচিউর গুগল এর থেকে।

এখন তাহলে আপনি নিশ্চয়ই Bing সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য SEO করতে আগ্রহী হবেন।

আর এখন যে কথাটি বলবো সেটি শুনলে অবশ্যই আপনার আগ্রহ আরো বেড়ে যাবে, সেটি হচ্ছে গুগলের চেয়ে বিং এ র‌্যাংকিং কম্পিটিশন তুলনা মূলক কম।

Bing এর ফ্রী টুলস এবং রিসোর্স

Bing এর গুরুত্বপূর্ন কিছু র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর

আসুন আমরা দেখে নেই বিং সার্চ ইঞ্জিন এ র‌্যাংকিং এর জন্য কি কি বিষয়ে সবচেয়ে বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

  1. ইউজার এনগেজমেন্ট: এটি বিং এর অন্যতম একটি র‌্যাংকিং সিগনাল। আপনার সাইটের ইউজার এনগেজমেন্ট যতো ভালো, আপনার সাইটটি বিং এ ততো ভালো পজিশনে র‌্যাংক করবে।
  2. CTR (Click Through Rate): আপনার সাইটটি বিং সার্চ ইঞ্জিন এ কতটা ভালো পারফর্মেন্স করে। অর্থাৎ, মনে করুন বিং সার্চ রেজাল্ট পেজে ১# পজিশনে থাকা সাইটি ২৫% ক্লিক পায় এবং ২# পজিশনে থাকা সাইটটি ৪৮% ক্লিক পায়, তাহলে আপনি বুঝতেই পারছেন যে, এখানে ২# পজিশনে থাকা সাইটটির CTR ভালো। এখানে প্রশ্ন করতে পারেন কেন ২# পজিশনে থাকা সাইটটি বেশী ক্লিক পাবে? হতে পারে এই সাইটটি তার টাইটেল এবং মেটা ডেসক্রিপশনে ভালো ভাবে তার কী-ওয়ার্ড প্লেস করেছে।
  3. সোশ্যাল সিগনাল: জ্বি হ্যা, আপনি ঠিকই দেখছেন, সোশ্যাল সিগন্যাল একটি গুরুত্বপূর্ন র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর বিং সার্চ ইঞ্জিন এ। এখানে আপনি একটি পোষ্টকে যত বেশী সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করবেন, তত পোষ্টটির ক্ষমতা বাড়বে র‌্যাংকিং পাবার।
  4. ব্যাকলিংক: যদিও বা গুগল এর মত বিং সার্চ ইঞ্জিন এ ব্যকলিংক কে এতটা গুরুত্ব দেয়া হয় না, জ্বি এটা সত্যি। আপনি গুগল এবং বিং এর রেজাল্ট পেজ তুলনা করলে দেখতে পাবেন যে, বিং এ যে সাইটটি র‌্যাংক করছে সেটির ব্যাকলিংক তুলনা মূলক কম।
  5. ইনবাউন্ড লিংক: এখানে আপনার নিজের পেজের ভিতরে ইন্টারনাল লিংকগুলিকে বিং অনেক বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে। তাই আমাদের উচিত একটি পেজে রেলেভেন্সি বজায় রেখে যত বেশী সম্ভব ইন্টারনাল লিংক করা। তাহলে সকল পেজের মধ্যে লিংক জুস (Link Juice) ফ্লো ঠিক থাকবে।
  6. কী- ওয়ার্ড ডোমেনে থাকা: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষত্রে ডোমেন নামের মাঝে কী-ওয়ার্ড থাকাটা উত্তম। এক্ষেত্রে যতি আপনি Exact Match Domain (EMD) নিয়ে থাকেন, তাহলেও কোনো সমস্যা নেই।
  7. পেজ অথরিটি: বিং সার্চ ইঞ্জিন Page Authority কে অনেক বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে। এই জন্য দেখা যায় যে, নতুন ডোমেনের থেকে বেশী বয়সের ডোমেন গুলি বিং এ ভালো র‌্যাংক পায়।
  8. কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষেত্রেও আপনাকে কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি নিয়ম মেনে চলতে হবে। একটি নির্দ্দিষ্ট কী-ওয়ার্ডকে বার বার লিখে কী-ওয়ার্ড স্টাফিং করা যাবে না। এ ক্ষেত্রে ডেনসিটি ২-৩% পর্যন্ত রাখতে পারবেন।
  9. তথ্য সম্বলিত কন্টেন্ট: কন্টেন্ট এর গুরুত্ব সব সার্চ ইঞ্জিন এই সমান। আপনাকে অবশ্যই সঠিক তথ্য সম্বলিত কন্টেন্ট সাইটে রাখতে হবে এবং ইউনিক কন্টেন্ট হতে হবে।
  10. সাইট স্ট্রাকচার ও নেভিগেশন: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর গাইডলাইন মতে আপনার সাইটের সকল পেজ হোমপেজ এর কাছাকাছি থাকতে হবে অর্থাৎ ৩টি ক্লিকের মধ্যে যেন সব পেজে বা পোষ্টে যাওয়া যায়। যেমন: SEO > On-Page SEO > Heading Tag
  11. সাধারন অন-পেজ এসইও: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষেত্রেও আপনাকে গুগল সার্চ ইঞ্জিন এর মত সাধারন অন-পেজ এসইও এর বিষয়গুলি যেমন: টাইটেল, হেডিং ট্যাগ, ইমেজ, মেটা ট্যাগ ইত্যাদি সঠিক ভাবে সাজাতে হবে।

আশা করছি উপড়ের আলোচনার মাধ্যমে আপনারা বুঝতে পেরেছেন যে, কিভাবে Bing Search Engine এ র‌্যাংক করতে হবে।

আমার লেখাটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। এবং আপনার মতামতের অপেক্ষায় রইলাম। কমেন্টের মাধ্যমে মতামত জানাবেন।

ধন্যবাদ সবাইকে

2019-03-23T19:17:32+00:00By |এসইও|

One Comment

  1. Merajul March 23, 2019 at 7:00 pm - Reply

    Thanks sir……the content was very helpful.

Leave A Comment

shares